শুক্রবার, ০৭ জুন ২০২৪, ০৯:০৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
বি.সি.জি বাংলাদেশ কুচিপুড়ি ডান্স এসোসিয়েশন ও নৃত্যকুড়ি নৃত্যালয়ের ১৩তম প্রতিষ্ঠা বাষির্কী উদযাপন। বাংলাদেশ বাউল সমিতি হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নতুন কমিটি গঠন। সাজিদ পরদেশীকে সভাপতি, এম এ বাছিত সাধারণ সম্পাদক। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যতীত উচ্চাঙ্গ নৃত্যের প্রশিক্ষক, অভিযোগ অনিয়মের। হবিগঞ্জ নারী উদ্যোক্তাদের ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত। হবিগঞ্জ সচেতন নাগরিক কমিউনিটির উপদেষ্ঠা সাইফুদ্দিন জাবেদকে সংগঠনের নতুন কার্যকরী কমিটির ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান। বানিয়াচং উপজেলা প্রেসক্লাবের ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত যাত্রী এবং ড্রাইভারদের মধ্যে বাকবিতন্ডা, বাড়ছে জনদূর্ভোগ। হবিগঞ্জ সচেতন নাগরিক কমিউনিটির প্রধান উপদেষ্ঠা জিয়াউল হাসান তরফদার মাহিনকে সংগঠনের নতুন কার্যকরী কমিটির ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান। ফ্রিল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং এবং ভাষা প্রশিক্ষণকোর্সের হবিগঞ্জ জেলা’র সকল শিক্ষার্থীদের বাছাই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে অযুক্তিকভাবে টমটম ভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্তকে হবিগঞ্জ যাত্রী কল্যান পরিষদের বয়কট

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যতীত উচ্চাঙ্গ নৃত্যের প্রশিক্ষক, অভিযোগ অনিয়মের।

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১ আগস্ট, ২০২৩
  • ১০৫ বার পঠিত

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যতীত উচ্চাঙ্গ নৃত্যের প্রশিক্ষক, অভিযোগ অনিয়মের।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জ শিল্পকলা একাডেমীর প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নৃত্যকলা বিভাগে প্রশিক্ষক নিয়োগে অনিয়ম হয়েছে এমন অভিযোগ তুলেছেন নৃত্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকবৃন্দ। গত ১৩ জুন হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জেলা কালচারাল অফিসার বরাবর জেলা শিল্পকলা একাডেমীর নৃত্যবিভাগের এক প্রবীর শীলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন অভিভাবক এডভোকেট শায়লা পারভীন। এক মাসেরও বেশি সময় অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত ঐ প্রশিক্ষকের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের কোন তদন্ত কার্যক্রম শুরু হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমীর প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নৃত্যকলা বিভাগে প্রশিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন প্রবীর শীল। তবে উচ্চাঙ্গ নৃত্য নিয়ে কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকলেও তাকে ঐ পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি জেলা শিল্পকলা একাডেমী আয়োজিত বিভিন্ন নৃত্য প্রতিযোগীতার বিচারকার্যে স্বজনপ্রীতি ও অনিয়মের অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে গুটি কয়েক প্রতিযোগী তথা নৃত্যশিল্পীদের সুবিধা দিয়ে আসছিলেন বিভিন্ন সময়ে বিচারকার্যদের দায়িত্বে থাকা এই প্রশিক্ষক। গত ৯ জুন ২০২৩, একটি প্রতিযোগীতায় নৃত্য পরিবেশনের সময় এক প্রতিযোগীর অলংকার খুলে পড়ে গেলেও নিয়মবহির্ভূতভাবে তাকে বিজয়ী ঘোষণা করেন প্রবীর শীল। অভিভাবক সাইফুদ্দিন জানান, আমার মেয়ে চার বছর সৃজনশীল ও উচ্চাঙ্গ নৃত্য বিভোগে প্রশিক্ষণ নিয়েছে এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে কিন্তু তাকে উচ্চাঙ্গ বিভাগে কোন নাচ বা নৃত্যের মূদ্রা শিখানো হয়নি, যার প্রশিক্ষক হিসাবে দায়িত্বে ছিলেন প্রবীর শীল।

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বিষয়ে প্রশিক্ষক প্রবীর শীলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘আমি কোথা থেকে নৃত্য শিখেছি এটা কি আমি লিফলেট লাগিয়ে চলবো নাকি ? আমি বিভিন্ন গুরুর কাছে ও প্রতিষ্ঠানের কাছে নৃত্য শিখেছি’। বার বার প্রতিষ্ঠানের নাম জানতে চাইলে কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেননি, কথার একপর্যায়ে উনি বলেন, নৃত্যশৈলী থেকে উচ্চাঙ্গ নৃত্যের প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেটের একটি নৃত্য সংগঠনের নাম নৃত্যশৈলী। নৃত্যশৈলীর প্রশিক্ষক ও অফিস ইনচার্জ এর সাথে কথা বলে জানা যায় প্রবীর শীল নামের কেউ সেখানে প্রশিক্ষন নেননি এমন কি তাকে প্রতিষ্ঠানের অফিসে আসতেও কেও দেখেননি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হবিগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমীর অন্তত ৩ জন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক জানান, প্রবীর শীল তাদের উচ্চাঙ্গ ও শাস্ত্রীয় নৃত্যের মূদ্রা একদম শিখায়নি যা শিখিয়েছেন ভুলভাবে শিখিয়েছেন যার জন্য সিলেটে ও ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিভাগীয় ও জাতীয় পর্যায়ে নৃত্য পরিবেশনে লজ্জা পেতে হয়েছে তাদের। অভিযোগের বিষয়ে জেলা কালচারাল অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) নাভিদ সারওয়ারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Comments are closed.

© All rights reserved  2020
Theme Developed BY ThemesBazar.Com